• Parabaas
    Parabaas : পরবাস : বাংলা ভাষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতি
  • পরবাস | সংখ্যা ৯১ | জুলাই ২০২৩ | গ্রন্থ-সমালোচনা
    Share
  • ঘর-বাহির, সম্পর্কের সুর-বেসুর, কর্মজীবনের আনুকূল্য-প্রতিকূলতা—এই নিয়েই মেয়েদের কথা মায়েদের কথা : শাশ্বতী রায়

    মেয়েদের কথা মায়েদের কথা — সম্পাদনা- রুশতী সেন; অক্ষর প্রকাশনী, কলকাতা; প্রথম প্রকাশ: ফেব্রুয়ারি ২০২২; ISBN: 978-93-83161-32-4

    কল্যাণী দত্তের প্রথম বই থোড় বড়ি খাড়া একটি আশ্চর্য কাহিনি সংকলন। উনিশ শতকের মধ্যভাগ থেকে বিশ শতকের গোড়ার দিকে বাঙালি হিন্দু অন্তঃপুরিকাদের যাপনকথা এই বই জুড়ে রয়েছে। যাঁদের কেউ চেনেন না, যাঁরা সামাজিকভাবে প্রতিষ্ঠিত নন, যাঁদের কথা জানতে-শুনতে-পড়তে সাধারণ পাঠক-শ্রোতার তেমন কোনও ‘আগ্রহ’ নেই—এই বই তাঁদের নিয়ে। এমন বইয়ের সামাজিক মূল্য প্রশ্নাতীত। সম্প্রতি রুশতী সেনের সম্পাদনায় মেয়েদের কথা মায়েদের কথা বইটি প্রকাশিত হয়েছে; এই বইয়ের কথা বলতে গিয়ে কেন কল্যাণী দত্তের প্রসঙ্গ এল সে কথাটি স্পষ্টভাবে বলা প্রয়োজন। থোড় বড়ি খাড়া বইয়ের শুরুতে কল্যাণী দত্ত এই বই লেখার কারণ জানাতে গিয়ে বলছেন—শুধু সাধারণ মানুষের কথা শুনে বয়স্ক লোকেদের মন ভরে না, নামজাদা মানুষের জীবনের গল্প সকলেরই প্রিয়। তাই বড় বড় মানুষের জীবনের নানা কাহিনি আমরা আগ্রহভরে শুনি, পড়ি। অথচ লেখক কোনও নামজাদা ব্যক্তির কথা এই বইতে লেখেননি, এই বইতে মাসি-পিসি-খুড়ি-জেঠিদের যাপনের কথা আছে যাঁদের একমাত্র পরিচয় তাঁরা গেরস্ত ঘরের বউ। তাঁদের কথায় কী এমন আছে? কল্যাণীর ভাষায় ‘তাঁদের থোড়বড়িতে একটু কী যেন ছিল অন্য সোয়াদ’। কল্যাণী দত্তের অগ্রন্থিত রচনা সংগ্রহেরও সম্পাদক রুশতী মেয়েদের কথা মায়েদের কথা-র শুরুতে ‘কিছু দরকারি-অদরকারি কথা’-য় জানাচ্ছেন, তিনি এমন একটি নারীকেন্দ্রিক সংকলন তৈরির কথা ভাবছিলেন যা ভরে থাকবে এমন কিছু মানুষের কথায়, তাঁদের পূর্বমাতৃকাদের কথায় যাঁরা গুণী, স্বক্ষেত্রে অভিজ্ঞ অথচ যাঁদের নিয়ে তেমন মাতামাতি নেই, সংবাদপত্রে (সোশাল মিডিয়ায়) যাঁদের খোঁজখবর মেলে না। এক অর্থে এই সংকলনও কিছু ‘অখ্যাত’ ব্যক্তির (যদিও কল্যাণী যাঁদের কথা লিখেছিলেন, এই সংকলনের লেখকরা তাঁদের মতো ‘অখ্যাত’ নন, বরং স্বক্ষেত্রে তাঁদের পরিচিতি নজর কাড়ে) কথায় মোড়া, তেমন নামজাদা ব্যক্তিদের যাপনকথার সংকলন নয় এই বই। কল্যাণীর প্রথম বই প্রকাশের চল্লিশ বছর পর রুশতীর সম্পাদনায় এমন একটি নারীকেন্দ্রিক সংকলন বেরোচ্ছে। এই সংকলনের কেউই ‘অন্তঃপুরিকা’ নন, বরং প্রত্যেকেই কর্মক্ষেত্রে যথেষ্ট ব্যুৎপন্ন; এই বইয়ের কোনও কোনও লেখকের কলমে প্রসঙ্গক্রমে তাঁদের পূর্বমাতৃকাদের সূত্রে সেকালের ‘অন্তঃপুর’-এর ছবি উঠে এলেও এই লেখাগুলি সেই অর্থে ‘টাইম পিস’ নয়, ঘরের জানলা দিয়ে আকাশ দেখার চেয়ে বাইরের বিস্তৃত আকাশই এঁদের প্রত্যেকের জীবন-সংগ্রামের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে। দুটি বইয়ের মধ্যে এমন অনেক পার্থক্য থাকলেও কল্যাণীর ‘কেন লেখা’-র সঙ্গে রুশতীর ‘অদরকারি কথা’-র মূলগত মিল খেয়াল করতে পারি—‘অখ্যাতজনের’ কথার কথা অনেকসময় এমনই অমূল্য হয়ে উঠতে পারে তা এই ধরনের বই না পড়লে বোঝা মুশকিল, বোঝানোও।

    সংকলনগ্রন্থটিতে মোট বারোটি লেখা রয়েছে। যাঁরা লিখছেন তাঁরা প্রত্যেকেই স্বক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত—তাঁরা পেশায় ও নেশায় অধ্যাপক, গবেষক, বিজ্ঞানী, শিক্ষাবিদ, মনস্তত্ত্ববিদ, দর্শনবিদ, মানবীবিদ্যাচিন্তক, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, নাট্যাভিনয় শিল্পী, খেলোয়াড়, পুরোহিত। এই বই এমন সব অভিজ্ঞতার ডালি নিয়ে পাঠকের সামনে হাজির হয়েছে যা আদতে সমাজের নানান পরিসরে মেয়েদের লড়াই ও কর্তৃত্ব স্থাপনের যাপনবৃত্তকেই তুলে ধরে। টুকরো টুকরো কথা জুড়ে একটা গোটা সমাজ-ছবি আমাদের সামনে উপস্থিত হয়। অনেক সময়েই এই লেখাগুলির লেখক কোনও একজন হলেও অভিজ্ঞতার সাযুজ্যে তা হয়ে ওঠে আরও পাঁচজনের কথা।

    ‘একতারাটির একটি তারে’ যে জীবনগান দর্শনের কৃতি অধ্যাপক শেফালী মৈত্রের সরস গদ্যে উঠে এসেছে তার অনেকগুলি পরত রয়েছে। নারীবাদী অধ্যয়ন কীভাবে তাঁর যাপনের অভিজ্ঞতার সঙ্গে মিলে যায় এই লেখা তার চমৎকার দৃষ্টান্ত হতে পারে। গোটা লেখাটি শেষ করে মনে হয় একজন ব্যক্তির শিক্ষা-কর্ম-গৃহীজীবনের অভিজ্ঞতার প্রতিটি বাঁকবদল আশ্চর্যভাবে তাঁর সিমন দ্য বোভোয়া পাঠের সঙ্গে মিলে যায়। লেখকের জীবনে লক্ষ্ণৌ পর্বের নানান ঘটনা পাঠকমনে বিস্ময় জাগায়। অন্যদিকে তাঁর লেখায় দুরূহকে মোকাবিলা করবার যে চেষ্টা আমরা দেখি এবং তাঁর কথায় মায়ের চারিত্রিক দৃঢ়তার নানান প্রমাণ পাই তাতে আমাদের বুঝতে অসুবিধে হয় না মেয়ে মায়েরই উত্তরাধিকার বহন করছে।

    অবিভক্ত কমুনিস্ট পার্টির সর্বক্ষণের কর্মী সত্যেন্দ্রনাথ গঙ্গোপাধ্যায় এবং পার্টির মেয়েদের পত্রিকা ‘ঘরে বাইরে’-র সহসম্পাদক উমা গঙ্গোপাধ্যায়ের মেয়ে বোলান গঙ্গোপাধ্যায়ের সেই অর্থে ‘কোনও মেয়েবেলা ছিল না’। এই লেখায় তিনি এক ‘নতুন ধারার গার্হস্থ্য’ জীবনের কথা বলেছেন যেখানে মেয়েরা (বোলানদের মায়েরা) পারিবারিক সঞ্চিত সম্পদ হারিয়ে বাইরে বেরোতে বাধ্য হচ্ছেন, সমস্ত রক্ষণশীলতা, রান্নাঘর, জাতিভেদ যা কিছু মেয়েদের পিছনে টানে, এক ঝটকায় সেসব কিছুকে সরিয়ে খিদের মুখোমুখি হচ্ছেন, কাজ খুঁজে সংসারের হাল ধরছেন। ১৯৪৮-এ পার্টির বেআইনি ঘোষণা থেকে আন্ডারগ্রাউন্ড, ফ্যাসিস্ট বিরোধী মঞ্চ থেকে রুশ বিপ্লব, ১৯৬২-এর যুদ্ধ থেকে ১৯৬৪-এর পার্টি ভাগ—এই রাজনৈতিক ইতিহাস অভিজ্ঞতার পরতে পরতে বোলান নিজের রাজনৈতিক অবস্থানটিকেও স্পষ্ট করেছেন।

    অধ্যাপক-শিক্ষাবিদ গোপা দত্ত ভৌমিক ‘যাত্রাপথের আনন্দগান’ শুরু করেছেন তাঁর পূর্বমাতৃকাদের কথা দিয়ে। এই লেখা তিন-প্রজন্মের অন্দর-সদরের টানাপোড়েনের সাক্ষী। লেখক সাতটি পর্বে তাঁর জীবনের যে খণ্ডচিত্র আমাদের সামনে তুলে ধরেছেন তার মধ্যে একটি অদৃশ্য সুতো জীবন অভিজ্ঞতার ধারাবাহিকতাকে রক্ষা করেছে, সচেতন পাঠক তা টের পাবেন। যে প্রতিবন্ধকতার মধ্যে তাঁর মা-ঠাকুমা লেখাপড়া চালিয়ে গেছেন লেখককে সেই ধরনের কোনও অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হতে হয়নি—একথা যেমন সত্যি, তেমনই সত্যি শিক্ষাজীবন ও কর্মজীবনের তরী একসঙ্গে বয়ে নিয়ে চলার কঠিন পরিস্থিতি। এই লেখার আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক শিক্ষাক্ষেত্রে মেয়েদের প্রশাসনিক দায়িত্ব সামলাবার কিছু অনভিপ্রেত প্রতিবন্ধকতা এবং প্রত্যাশিত সাফল্য।

    শুক্লা ঘোষের লেখাটি তাঁর বিজ্ঞান-যাপনের কথা তুলে ধরে। বিজ্ঞানচর্চা তাঁর অর্থকরী পেশা মাত্র নয়, তিনি বিজ্ঞানের জন্য বাঁচেন। তাঁর নিবন্ধ থেকে একথা স্পষ্ট তাঁর পূর্ব প্রজন্মের মেয়েরা বিজ্ঞানচর্চাকে জীবনযাপনের অঙ্গ করে তোলার ক্ষেত্রে কী ধরনের বিরোধিতার সম্মুখীন হয়েছেন। তাঁর চলার পথও যে সবসময় মসৃণ ছিল তা নয়, তবুও তিনি মনে করেন বিজ্ঞান গবেষণায় মেয়েদের এগিয়ে আসা কতটা দরকারি, নিজে আজও সেই গবেষণা জীবন উপভোগ করে চলেছেন।

    মনোবিদ সুবর্ণা সেনের লেখাটির চলন এই সংকলনের বাকি লেখাগুলির থেকে আলাদা। তিনি নিজের কথা সেই অর্থে লেখেননি, লিখেছেন অন্যের মনের কথা। তবে লেখাটি পড়ার পর মনে হয় এই অন্যের কথা বলার মধ্য দিয়েই সুবর্ণা নিজেকে চিনিয়েছেন। কোভিড পরবর্তী সময়ে দাঁড়িয়ে এই লেখার গুরুত্ব অনেক বেশি। সামাজিক ও সাংসারিক পরিসরে মেয়েদের যে পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয়, বিশেষত চল্লিশোর্ধ্ব মহিলাদের মধ্যে যে-ধরনের 'psychosomatic disorder' লক্ষ করা যায়—তাকে মোকাবিলা করবার, তা নিয়ে ভাববার পরিসর তৈরি করে দেয় লেখাটি।

    দেবশ্রী ঘোষ মূলত গবেষণা জীবনকেই তাঁর নাতিদীর্ঘ লেখার মূল উপজীব্য করে তুলেছেন। তিনি তাত্ত্বিক রসায়নের চর্চা করেন। দেশে-বিদেশে একজন বিজ্ঞান গবেষককে কর্মক্ষেত্রে যে ওঠা-পড়ার সম্মুখীন হতে হয় দেবশ্রীও সেই পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে গেছেন, নিজের লক্ষ্য পূরণে অবিচল থেকেছেন। নিজের জীবন অভিজ্ঞতা থেকেই তিনি জানাচ্ছেন সাফল্য অর্জন করতে মেয়েদের অনেক বেশি পরিশ্রম করতে হয় যা বাস্তবিকক্ষেত্রে বেশ কঠিন।

    অর্থনীতির অধ্যাপক স্বাতী ঘোষ চার সদস্যের পরিবারকথা (চার প্রজন্মের তিনজন মেয়ে ও তাঁদের একজনের ছোট ছেলে) শুনিয়েছেন, যদিও শেষ অবধি লেখাটি পরিবার কথায় সীমাবদ্ধ থাকেনি। তাঁর পরিচিত বিভিন্ন বয়সী মেয়েদের ‘ঘর’ ও ‘বার’ সামলানোর নানান অভিজ্ঞতা আসলে চারপাশের মানুষজনকে চেনার একটি উপায়ও বটে। ‘বাসা’ কথাটির মধ্যেই ‘বদল’-এর ইঙ্গিতটুকু থেকে যায়, আর যখন সেই ‘বাসা’ হয় ‘পুরুষ অভিভাবকহীন’ তার কথা লিখতে গেলে অনেক প্রসঙ্গই চলে আসে।

    নন্দিনী ভৌমিক তাঁর লেখায় একদিকে চার প্রজন্মের কথা লিখেছেন, অন্যদিকে এই লেখা থেকে নন্দিনীর অধ্যাপনা জীবন, অভিনয় জীবন এবং পৌরোহিত্যের কাজের অভিজ্ঞতার কথাও পাব। শহরের নামজাদা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে লেখাপড়া শেখার পরেও রক্ষণশীল পরিবারে বড় হয়ে ওঠার নানা শর্ত তাঁর জীবনযাত্রাকে কিছু দূর নিয়ন্ত্রণ করেছে। তবে এসব কিছুকেই ছাপিয়ে গেছে তাঁর শ্বশুরবাড়ির ‘কুসংস্কারাচ্ছন্ন নিয়মের নিয়ন্ত্রণ’ ও তাকে জয় করবার অদম্য প্রাণশক্তির প্রকাশ্য উপস্থিতি। বর্তমানে সামাজিক গণমাধ্যম তাঁর পৌরোহিত্য (‘মহিলা পুরোহিত’ কথাটি এই সূত্রেই চালু হয়েছে, যদিও এই অভিধাটি বিবেচক পাঠকমাত্র বিচার করে গ্রহণ বা বর্জন করবেন) প্রসঙ্গে নানান ইতিবাচক খবরাখবর প্রকাশ করেছে। এর সূত্রপাত অনেক আগেই; সামাজিক ও পারিবারিক পরিসরে জাতি-ধর্ম-লিঙ্গভেদে পৌরোহিত্যের দায়িত্ব নেওয়া এবং তার ধারাবাহিকতা বজায় রাখার কাজটি যে যথেষ্ট কঠিন তা এই লেখা পড়ে আরও স্পষ্টভাবে বোঝা যায়।

    বিজয়লক্ষ্মী বর্মণের কাছে নাটক-যাপন ও জীবনযাপন সমার্থক। তাঁর পূর্বমাতৃকারা কেউ তেমন লেখাপড়া করার সুযোগ পাননি। তিনি নিজে লেখাপড়া চালিয়ে গেছেন তাঁর মায়ের উৎসাহে। শ্বশুরবাড়িতে মূলত তাঁর স্বামীর তত্ত্বাবধানে মঞ্চাভিনয়ে ধীরে ধীরে প্রবেশ, যদিও মৃণাল সেনের ‘একদিন প্রতিদিন’ সিনেমায় অভিনয়ের সুযোগ পেয়েও তা হাতছাড়া হয়েছিল পারিপার্শ্বিক কারণে। তবে থিয়েটারের প্রতি আশ্চর্য টান তাঁকে চলার পথের নানান প্রতিকূলতাকে জয় করতে শিখিয়েছে।

    অনেক না-পাওয়া, অনেক নিরাশা, জীবনযুদ্ধে নানা বাধা-বিপত্তির মুখোমুখি হওয়ার পরেও যে কাজ করে যেতে হয়, মানসিকভাবে সমর্থ হতে হয়, অর্থনৈতিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হয়, সর্বোপরি আশাকে টিঁকিয়ে রাখতে হয়—এই নাছোড় মানসিকতা গবেষক এবং সাহিত্যিক স্বাতী গুহের লেখার প্রাণ। নানান কাজের অভিজ্ঞতা ও পারিবারিক পরিস্থিতি তাঁকে প্রকৃত অর্থেই স্বাবলম্বী করে তুলেছে। চলার পথে যাঁদের নিঃশর্ত সহায়তা তিনি পেয়েছেন, এই লেখার অনেকটা জুড়ে তাঁরাও রয়েছেন।

    এই সংকলনের যে লেখাটি পড়ে মনে হয়েছে এই বইয়ের নামে যে মেয়েরা আছেন তাঁদের মধ্যে সবচাইতে লড়াকু বোধহয় তিনিই যিনি ‘মেয়েবেলা’-র দাবিদাওয়াকে তুচ্ছ করে, প্রবল পরিশ্রম ও অদম্য সাহসিকতায় ভর করে খেলোয়াড় জীবনকে বেছে নিয়েছিলেন—কুন্তলা ঘোষ দস্তিদার। এই সংকলন গ্রন্থে অধ্যাপক-গবেষকদের পাল্লা ভারী, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব কিংবা অভিনয় শিল্পীরাও অবশ্য রয়েছেন। তবে অনেকাংশেই ব্যতিক্রমী একজন খেলোয়াড়ের তৈরি হয়ে ওঠার ইতিহাস ‘খেলাই জীবন’ যা শেষ হচ্ছে এই শপথ নিয়ে—ফুটবল কুন্তলাকে অনেক কিছু দিয়েছে, যতদিন বাঁচবেন ফুটবলের জন্য কর্তব্য পালন করবেন, তাঁর আজন্ম ঋণ এই ফুটবলের কাছেই। ফুটবল নিয়ে, বাঙালির ফুটবল খেলা নিয়ে বেশ কিছু সিনেমা তৈরি হয়েছে; অনেক বইপত্রও লেখা হয়েছে। ফুটবলারকে (অবশ্যই পুরুষ) নিয়ে বায়োপিক তৈরি হয়েছে, তবে এই সবকিছুর কেন্দ্রে সক্রিয় থেকেছে পিতৃতান্ত্রিক মূল্যবোধ। বাঙালি মেয়েদের ফুটবল খেলা নিয়ে, তাঁদের লড়াই নিয়ে আরও কাজ হোক—এই লেখাটি পড়ার পরে একজন পাঠক হিসেবে এইটুকুই চাওয়া।

    এই সংকলনের শেষ লেখাটি এই বইয়ের সবচেয়ে দীর্ঘ নিবন্ধ। কৃষ্ণা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘আমার নকশালবাড়ি’-কে আমরা সামাজিক দলিল হিসেবে পড়তে পারি। সম্পাদক যথার্থভাবে জানাচ্ছেন, এই লেখাটির চলন বাকি লেখাগুলির থেকে খানিক আলাদা, কথা বলার ধরতাইটা না-ভেঙেই লেখাটি এগিয়েছে। কৃষ্ণার রাজনীতির জীবন ও কারাবাস-জীবন একটি বিশেষ সময়ের বিশ্বাস-অবিশ্বাস, আস্থা-অনাস্থা, গ্রহণ-প্রত্যাখ্যান ও প্রাপ্তি-বঞ্চনার ইতিবৃত্তকে তুলে ধরে। এই আত্মকথার সংকলন মেয়েদের ঘর-বারের লড়াই, সম্পর্কের নানান সুর-বেসুর, কর্মজীবনের আনুকূল্য-প্রতিকূলতার সাক্ষী—এটিই এই বইয়ের সবচাইতে জোরের দিক। এই সংকলনের ত্রুটির দিক যদি কিছু থাকে, তা স্বয়ং সম্পাদকই বইয়ের শুরুতে জানিয়েছেন। তাঁর এই বইভাবনাকে কুর্ণিশ জানাই।

  • মন্তব্য জমা দিন / Make a comment
  • (?)